1. shikhatvlive@gmail.com : Shikha TV Live :
রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:৪৪ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর এমপিওভুক্ত শিক্ষক মোকাররম হোসেন এর আবেগঘন খোলা চিঠি বিয়েবাড়িতে ছবি তোলা নিয়ে গোলাগুলি, আহত ২৪ পরিবারের আয়ের পথ না থাকায় তারা বাধ্য হয়েই কাঁকড়া শিকারের কাজে নেমেছেন, স্কুলে ফেরানোই এখন বড় চ্যালেঞ্জ! শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে এখনো সংক্রমণের খবর আসেনি : শিক্ষামন্ত্রী নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনা নিয়ে হাইকোর্টের দেওয়া রুলের শুনানি শেষ, রায় অপেক্ষামান সাধারণ পর্যটক হিসেবে মহাকাশ ঘুরে এলেন চার পর্যটক লক্ষ বেকারের আস্তা ও বিশ্বাসের প্রতিক রিং আইডি।। তরুণ উদ্যোক্তা সাহাবুর সকলের সহযোগিতা চায়। নাটোরে আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত রাতের অন্ধকারে ঘরের দুয়ারে চিরকুটসহ টাকা রাজশাহীতে ভুল চিকিৎসায় জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে শিশু রাফি

সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা এখনো টিকা নেননি আমতলীর পাঁচ শতাধিক শিক্ষক

প্রতিবেদকের নাম:
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ৩১ আগস্ট, ২০২১
  • ২৪ ৫০০০ বার পড়া হয়েছে

আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে দীর্ঘ সময় বাংলাদেশে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। সম্প্রতি সরকার সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার সাম্ভব্যতা যাচাই করছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার আগে সব শিক্ষককে অবশ্যই টিকা নেওয়ার বাধ্যবাধকতা থাকলেও বরগুনার আমতলী উপজেলার ৫৬৩ জন শিক্ষক এখনো টিকা গ্রহণ করেননি। তারা সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা করে টিকা গ্রহণে গড়িমসি করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

জানা গেছে, দেশে করোনা মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এতে শিক্ষার্থীদের লেখাপড়া বন্ধ থাকায় চরমভাবে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। অকালে ঝরে গেছে অনেক শিক্ষার্থী। এ সংকট থেকে উত্তরণের জন্য সরকার প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। করোনা সংক্রমণ থেকে মানুষকে রক্ষায় সরকার গত ৬ ফেব্রুয়ারি থেকে টিকার কার্যক্রম হাতে নেয়। সরকার শতভাগ টিকার কার্যক্রম নিশ্চিত করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা দিয়েছে। সরকারের ওই নির্দেশনা সত্ত্বেও আমতলী উপজেলার ৫৬৩ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা এখনো টিকা নেননি।
উপজেলা প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় ১৫২টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এতে ৮০৪ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা কর্মরত। ৪০টি মাধ্যমিক ও নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৫৪০ জন, ২৯টি দাখিল ও আলিম মাদরাসায় ৫২৬ জন এবং ৭টি কলেজে ২৩৩ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা কর্মরত। এদের মধ্য থেকে কলেজে ১২০ জন, প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৭৫৬ জন, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৪৩১ জন ও মাদরাসায় ২৩৩ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা টিকা নিলেও এখনো টিকা নেননি কলেজের ১১৩ জন, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ১০৯ জন, মাদরাসার ২৯৩ জন এবং প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪৮ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা। তারা সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা করে টিকা নিতে গড়িমসি করছেন। এদের মধ্যে মাদরাসাশিক্ষকরাই টিকা নিতে বেশি অনাগ্রহী। সূত্র জানায়, এখন পর্যন্ত মাদরাসার অর্ধেকের বেশি শিক্ষক- শিক্ষিকা টিকা গ্রহণ করেননি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক মাদরাসাশিক্ষক জানান, টিকা কার্যক্রমের প্রতি তাদের তেমন একটা আস্থা নেই বলেই সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা করে তারা টিকা গ্রহণ করছেন না। আল্লাহর রহমতে এখনো আমরা সুস্থ আছি। আমাদের করোনা হবে না ইনশাআল্লাহ।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. মজিবুর রহমান মুঠোফোনে বলেন, উপজেলার ৮০৪ জন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষিকার মধ্য থেকে ৭৫৬ জন টিকা গ্রহণ করেছেন। বাকি ৪৮ জন শিক্ষক- শিক্ষিকা বিভিন্ন কারণে টিকা নিতে পারেননি। তাদেরকেও দ্রুততম সময়ের মধ্যে টিকা গ্রহণের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জিয়া উদ্দিন মিলন বলেন, উপজেলার স্কুল, কলেজ ও মাদরাসার এক হাজার ২৯৯ জন শিক্ষকের মধ্য থেকে ৭৮৪ জন শিক্ষক-শিক্ষিকা টিকা নিয়েছেন। অবশিষ্ট ৫১৫ জন শিক্ষক এখনো টিকা নেননি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কাওসার হোসেন মুঠোফোনে বলেন, শতভাগ টিকা কার্যক্রম নিশ্চিত হলেই দ্রুততম সময়ের মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে- সরকারের এমন নির্দেশনার আলোকে শিক্ষকদের টিকা গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সরকারি নির্দেশনা উপেক্ষা করে যেসব শিক্ষক-শিক্ষিকা এখনো টিকা নেননি, খোঁজ নিয়ে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শিক্ষা টিভি লাইভ এর সংবাদ শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: ইয়োলো হোস্ট

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত